Bhalukanews.com

ফারুককে নিয়ে আপত্তিকর বক্তব্যে নিষিদ্ধ হতে পারেন শাকিব!

অনলাইন ডেস্ক: একটি বিতর্ক শেষ হতে না হতেই নতুন করে ফের বিতর্কের জন্ম দিয়ে যাচ্ছেন দেশিয় চলচ্চিত্রের শীর্ষ নায়ক শাকিব খান। অপু বিশ্বাসের সঙ্গে প্রেম, বিয়ে, সন্তান জন্মদানের ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই নায়কের মাথা ঠিক নেই। অপুকে স্ত্রীর মর্যাদা দিতে গিয়েও অনেক জল ঘোলা করেছেন তিনি। এরপর পরিচালক ও প্রযোজকদের নিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করে কিছুদিন কোনঠাসা থেকে অবশেষে ‘সরি’ বলে পার পেয়েছেন।

এবার খ্যাতিমান অভিনেতা চিত্রনায়ক ফারুককে নিয়ে অশোভনীয় ও ঔদ্বত্যপূর্ণ বক্তব্য দিয়ে চলচ্চিত্র মহলের বাইরে সারা দেশের সিনেমাপ্রেমীদের কাছে তুমুল বিতর্কের মুখে পড়েছেন শাকিব খান। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ নিয়ে চলছে নানা সমালোচনা। এদিকে বর্ষীয়ান অভিনেতা ফারুককে নিয়ে মন্তব্যের জের ধরে আবারও নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছেন শাকিব খান! গত সোমবার রাতে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির কার্যালয়ে শীর্ষ পর্যায়ের এক বৈঠকে এ ব্যাপারে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানা গেছে। গত রোববার সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি রেস্তোরাঁয় প্রদর্শক ও বুকিং এজেন্ট সমিতি যৌথভাবে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।

সেখানে ফারুককে উদ্দেশ্য করে শাকিব খান বলেন, ‘এতদিন কোথায় ছিলেন সাহেব? আজকে আপনি এফডিসিতে এসে নেতাগিরি করছেন। চলচ্চিত্রের দুর্দিন তো অনেক আগে থেকেই চলছে। তখন তো আপনাকে দেখা যায়নি। নতুন কমিটির সাথে সাথে ঘুরছেন আপনি। তাদের দুর্বল মানসিকতার কারণে আপনার মতো সুদিনের কোকিলরা সুযোগ পায়।’ এই সময়ের নায়কের এমন বক্তব্যে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নেতৃবৃন্দের মান ক্ষুণ্ন হয়েছে বলে মনে করছেন তারা। এজন্য সোমবার রাতে এক জরুরি বৈঠক বসেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নেতারা। সূত্র জানায়, এ সময় চলচ্চিত্রে শাকিবকে নিষিদ্ধ করার ব্যাপারে সবাই একমত হন।

এদিকে নিজেকে নিয়ে শাকিব খানের আপত্তিকর বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে চিত্রনায়ক ফারুক বলেন, আমি আসলে কী বলবো ঠিক বুঝে ওঠতে পারছি না। শাকিব আমার অনেক ছোট। ছোট ভাইয়ের মতো। ওর কথা শুনে ওকে আমার শিশু মনে হচ্ছে। আমার মনে হয়, শাকিব শিল্পী হতে পারেনি। কারণ একজন শিল্পী নিজের অজান্তেই শিল্পী হয়ে যায়। আর শিল্পীকে সাধারণের মতো কথা বলতে নেই। আমি গত চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে মিশা সওদাগরের প্যানেলের পক্ষে বিভিন্ন সময় কথা বলেছি। কিন্তু কখনোই এটা বলিনি যে, অন্যদের ভোট দিও না।

সত্যি বলতে কী, একজন শিল্পীকে সবকিছু শৈল্পিক করে বলতে হয়। আমি জানি না কী করে শাকিব খান আমার সম্পর্কে এভাবে বক্তব্য দিয়েছে। আসলে সে এখনো অনেক ইমম্যাচিউরড। ম্যাচিউরিটি আসলে এভাবে মূর্খের মতো কথা বলতে পারতো না। কোনো শিল্পী এভাবে বলতে পারে না। শাকিব সেই লেভেলে এখনো যায়নি বলেই এমনটি বলেছে। শাকিব আমাকে উদ্দেশ্য করে বলেছে, সাহেব এতদিন কোথায় ছিলেন? আমার মনে হয়, সে সাহেব ছবিটির কথা বলেছে। আমার অভিনীত এই ছবির একটি গান আছে না, আমি সাহেব নামের এক গোলাম/ শুধু হুজুর হুজুর করে গেলাম/ নাইবা পেলাম কারো আদাব সালাম/ তবু জনসেবার এই চাকরি নিলাম। আমার চরিত্রটি তো এমনই। শাকিব আমার চরিত্রটাও বুঝতে পারেনি। আমি শাকিবকে তার বলা কিছু কথা মনে করিয়ে দিতে চাই। শাকিব তোমার কি মনে আছে, একদিন আমার পায়ে সুন্দর জুতো দেখে তুমি অবাক হয়ে বলেছিলো, ভাইয়া, এত সুন্দর জুতো আপনি কোথা থেকে কিনেছেন। তাহলে আমি যে জুতো পরিটা দেখেও অবাক হতে হয়।শাকিবকে নিয়ে কিছু বলাটা আসলে আমার সাজে না। ওর লেভেল আর আমার লেভেল এক নয়।

খ্যাতিমান চিত্রপরিচালক সোহানুর রহমান সোহান বলেন, ফারুক ভাইকে নিয়ে এত বড় কথা বলতে পারেন না শাকিব খান। ফারুক ভাই খ্যাতনামা একজন অভিনেতা। জাঁদরেল অভিনেতা। একসময় দেশিয় চলচ্চিত্রে তার দুর্দান্ত প্রতাপ ছিলো। তাকে নিয়ে শাকিবের এ ধরনের বক্তব্য শোভনীয় নয়। আমি এর তীব্র প্রতিবাদ ও ধিক্কার জানাই। আমি মনে করি, শাকিব খানের কোনো কিছু বলার আগে অনেক ভেবে দেখা দরকার। আসলে সে নিজেও বুঝতে পারছে না সে কী বলছে! আমার মনে হয় শাকিবকে কেউ ভুল পথে পরিচালিত করছে। ওকে দিয়ে বলাচ্ছে। ও কিন্তু আগে সবাইকে সম্মান দিয়েই কথা বলতো। হঠাৎ করেই ওর কী হলো!

*

*

Top