Bhalukanews.com

নওগাঁর বদলগাছীতে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধে ফাঁটল, এলাকবাসী আতংকিত

ব্রেলভীর চৌধুরী, নওগাঁ জেলা প্রতিনিধিঃ উজান থেকে নেমে আশা পানির চাপে নওগাঁর বদলগছী উপজেলার ছোট যমুনা ও তুলশী গঙ্গা নদীর ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। মথুরাপুর ইউপির ৪টি গ্রামে বন্যা। উপজেলার প্রায় আড়াই হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। ছোট যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বিভিন্ন স্থানে বেরী বাধে বাঁধে ফাঁটল দেখা দিয়েছে। এলাকবাসী আতংকিত পরিস্থিতি সামাল দিতে বিভিন্ন স্থানে দিন-রাত পাহারা দিচ্ছে বেরী বাঁধ।

উপজেললার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে জানাগেছে, গত কয়েক দিনের ভারী বৃষ্টিপাতে মাঠ ঘাঠ তলিয়ে গেছে। হাজার হাজার বিঘা রোপা আমন ধান সহ বেগুন, পটল, মরিচ সহ অন্যান্য শাক সব্জির ক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে। বর্তমানে নদীর পানি ভয়াবহ বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে নদীর দুই পাশের্^ আরজী দাউদপুর, চক আলম, সেনপাড়া , দেউলিয়া, ইদ্রাকপুর, পারসোমবাড়ী কাজল বিবরি মোড়ে তাজপুর, এনায়েতপুর সহ প্রায় ২০/২৫ জায়গাতে মারাতœক ফাটল দেখা দিয়েছে এবং সেনপাড়া মাত্র ১ কিলোমিটার পাকা সড়কের মধ্যে তিনটি স্থানে সড়কের নিচে বিভিন্ন খাল দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। গত মঙ্গলবার মথুরাপুর ইউপির গয়েশপুর, পিরোজপুর, চকজালাল ও পারশাপিলা গ্রামে নদীর পানি ঢুকে রাস্তা-ঘাট বাড়ি-ঘর ডুবেগেছে।

অপরদিকে তুলশী গঙ্গা নদীর দেউকুড়ী ভেঙ্গে যাওয়ায় উপক্রম হয়ে পড়লে হুমকির স্থান গুলিতে বস্তা খুটি মেরে ভাঙ্গন রোধের চেষ্টা করছে এলাকাবাসী। পুরো বাঁধে এলাকাবাসী দিন রাত পাহারা দিচ্ছে তাদের ঘর-বাড়ি রক্ষায়। এখন পর্যন্ত নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় আতংকিত এলাকাবাসী মাচা বেধে ঘর-বাড়ির মালামাল হেফাজত করছে।

বিলাশবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান কেটু ও আধাইপুর ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেন চৌধুরী বাঁধ রক্ষায় সার্বক্ষনিক বস্তা ও খুটি দিয়ে দিন রাত সহযোগিতা করে চলেছে এলাকাবাসীকে।

থেমে নেই সথানীয় সংসদ সদস্য ছলিম উদ্দীন তরফদার সেলিম তিনিও সার্বক্ষনিক খোজ খবর নিচ্ছেন এবং পরিদর্শন করছেন।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানদের পাশাপাশি স্থানীয় সংসদ সদস্য ছলিম উদ্দীন তরফদার সেলিমও সার্বক্ষনিক খোজ খবর নিচ্ছেন এবং পরিদর্শন করছেন।

উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তফা অলি আহম্মেদ রুমী চৌধুরী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুম আলী বেগ, নওগাঁ জেলা পরিষদ সদস্য জহুরুল ইসলাম, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান স.ম. ফজলুল হক বাচ্চু ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুল করিম সার্বক্ষণিক বাঁধ পরিদর্শন করছেন।

এ রিপোট লেখা পর্যন্ত যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় আতংকিত এলাকাবাসী উঁচু স্থান গুলোতে মাচা বেঁধে তাদের বাড়ি ঘরের মালামাল, গবাদি পশু গরু, ছাগল, হাঁস, মুরগি সহ ধান, চাল রক্ষার জন্য বিভিন্ন স্থানে আশ্রয় নিচ্ছেন।

*

*

Top