Bhalukanews.com

মা হতে চান স্বাভাবিক যৌনাঙ্গহীন তরুণী!

অনলাইন ডেস্ক: অবাক হওয়ার মত খবর! তারপরেও ঘটনা সত্যি। ১৮ বছরের এক তরুণীর শরীরে স্বাভাবিক যৌনাঙ্গ নেই! স্বাভাবিক আকৃতির যৌনাঙ্গ ছাড়াই জন্ম নেওয়া ওই তরুণীর মা হওয়ার প্রবল বাসনা। এ কারণে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে যৌনাঙ্গ প্রতিস্থাপনে অর্থ সংগ্রহে নেমেছেন যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা অঙ্গরাজ্যের জিলবার্ট এলাকার ওই তরুণী ও তাঁর প্রেমিক।

ব্রিটিশ অনলাইন ইনডিপেনডেন্টের প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই তরুণীর নাম কাইলি মোটস। তিনি চিকিৎসাবিজ্ঞানের পরিভাষায় ‘মায়ার-রোকিটানস্কি-কুস্টার-হাউসার সিনড্রোম’-এ আক্রান্ত। প্রতি পাঁচ হাজার নারীর মধ্যে একজন ওই সিনড্রোমে আক্রান্ত হতে পারেন। এ কারণে জন্ম থেকেই তাঁর শরীরে স্বাভাবিক যৌনাঙ্গ নেই। তবে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে এর সমাধান হতে পারে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বয়স বাড়লেও কাইলির কোনো দিন ঋতুচক্র আসেনি। এ সমস্যা নিয়ে তিনি চিকিৎসকের কাছে যান। চিকিৎসক পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে জানতে পারেন, তাঁর শরীরে জরায়ু, গর্ভাশয় এমনকি যৌনাঙ্গের কোনো প্রবেশদ্বার নেই। এ অবস্থায় সন্তান জন্ম দেওয়ার মতো তাঁর কোনো ক্ষমতা নেই। তবে চিকিৎসক জানিয়েছেন, অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে এ সমস্যার সমাধান করা সম্ভব। এর জন্য প্রচুর অর্থের প্রয়োজন। আর এ কারণেই অর্থ সংগ্রহে নেমেছেন কাইলি, তাঁর বোন ও প্রেমিক।

নর্দার্ন অ্যারিজোনা ইউনিভার্সিটির গ্র্যাজুয়েট শিক্ষার্থী কাইলি মোটস বলেন, ‘আমি কোনো দিন সন্তানের মা হতে পারব না, এ বিষয়টি আমাকে অন্য নারীদের চেয়ে আলাদা করে রেখেছে। কারণ, অন্য নারীরা যে কাজে সক্ষম, আমি তা নই।’

প্রতিবেদনে বলা হয়, অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে নিজের যৌনাঙ্গের প্রবেশদ্বার তৈরিতে প্রয়োজনীয় অর্থ সংগ্রহে ‘গোফান্ডমি’ নামে একটি পেজ খুলেছেন কাইলি। এই চিকিৎসায় ব্যয় হবে প্রায় ১২ লাখ ১৭ হাজার টাকা (১৫ হাজার ডলার)।

কাইলি মোটসের বোন আমান্দা মোটস ‘গোফান্ডমি’ পেজে লিখেছেন, ‘আমার বোনের জীবনে নাটকীয়ভাবে পরিবর্তন আসতে পারে। তাঁকে ভালো করতে যে কেউ অংশ নিতে পারেন।’

প্রতিবেদনে বলা হয়, কাইলির অস্ত্রোপচারে প্রায় ১২ লাখ ১৭ হাজার টাকা খরচ হবে। কিন্তু তাঁর স্বাস্থ্যবিমায় ওই পরিমাণ খরচের অর্থ নেই। এখন পর্যন্ত তাঁরা প্রায় ২ লাখ ৮৪ হাজার টাকা (তিন হাজার ৫০০ ডলার) সংগ্রহ করতে পেরেছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, নিজের স্বাভাবিক যৌনাঙ্গ নেই, এ কথা শোনার পর তা প্রেমিক রব্বি লিমারকে বলতে বিব্রতবোধ করেছিলেন কাইলি। রব্বির কেমন প্রতিক্রিয়া হবে, এই ভয়ে ছিলেন তিনি। তবে সব শোনার পর কাইলির পাশেই দাঁড়িয়েছেন রব্বি। প্রেমিকার অস্ত্রোপচারের জন্য নিজের বেতনের একটা অংশ জমিয়ে রাখছেন তিনি।

রব্বি লিমার বলেন, ‘যখন সে (কাইলি) আমাকে বিষয়টি জানিয়েছে, তার আগে থেকেই আমি তাকে ভালোবাসি। তাই তার এই সংবাদ আমার ভালোবাসা এতটুকু ক্ষুণ্ন করতে পারেনি। তার প্রতিটি পদক্ষেপেই আমি সঙ্গে আছি। আমি এই ভেবে বিস্মিত হয়েছি, সে কখনোই নিজেকে আলাদাভাবে বিবেচনা করেনি। তাকে দেখে আমি প্রতিনিয়ত উৎসাহ পাই।’

*

*

Top