Bhalukanews.com

বাঁচতে দেয়নি ওদের স্বপ্নকে 

দেশে নারী নির্যাতন বাড়ছে বৈ কমছে না। বর্তমান সময়ের ঘটনাপ্রবাহ তাই মনে করিয়ে দেয়। এই কারণে বাবা-মায়েরা তাঁদের সন্তানদের নিরাপদে বাহিরে চলাচলের স্বাধীনতা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এসব ঘটনা যেন আইনের তোয়াক্কা করছে না। প্রতিনিয়ত দেশের বিভিন্ন স্থানে ঘটছে ন্যক্কারজনক ধর্ষণের মতো এসব ঘটনা। সম্প্রতি শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার চোকদারকান্দি গ্রামের পঞ্চম শ্রেণির মেধাবী ছাত্রী রিমা আক্তার গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার হয়ে মৃত্যু হয়। গত মাসের শেষের দিকে টাঙ্গাইলের মুধুপুর বন এলাকায় রূপা নামের এক তরুণীকে চলন্তবাসে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়। ঘটনাগুলো শোনতেই কেমন গা শিউরে ওঠে। প্রশ্ন হলো কেন হচ্ছে এসব ধর্ষণের ঘটনা? এদের শতকরা কত ভাগ শাস্তির আওতায় আসছে? এসব প্রশ্নের উত্তর আজ নিরাশাব্যঞ্জক। সাম্প্রতিক সময়ে চলন্তবাসের ধর্ষণসহ বেশ কয়েকটি ধর্ষণের ঘটনা ভয়ংকর সব আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। সাধারণ গাড়িতে ধর্ষণের ঘটনায় গাড়ির চালক, হেলপার,কর্মীরাই জড়িত থাকে। তাদের পৈশাচিতার কবলেই পড়তে হয় তরুণীদের। একেবারে অশিক্ষিত,পাষন্ড,বর্বর শ্রেণির মানুষ দ্বারাই এসব কাজ সংগঠিত হওয়ার প্রবণতা লক্ষ করা যায়। এর নজির সারাদেশে বর্তমান। ন্যক্কারজনক এসব ধর্ষণ বন্ধে সারা দেশে মানববন্ধন হচ্ছে,বিভিন্ন সংগঠন বিচারের দাবিতে কর্মসূচি দিচ্ছে। সব কিছুর পরও থেমে নেই ধর্ষণ।  শুধু পরিবহনেই নয় বাড়ি কিংবা স্কুলেও বিভিন্ন সময় নারী নির্যাতন হচ্ছে। দেশে যে হারে সহিংসতা বেড়ে গেছে তাতে নারীদের ঘরের বের হওয়াই দুষ্কর। নারীদের নিরাপত্তার জন্য পুরুষদেরই এগিয়ে আসতে হবে। নিরাপত্তা দেবার দায়িত্ব সরকারের। কিন্তু বারবার  দেশে এমন নৃশংস ঘটনা ঘটলেও বিচার বিলম্বিত হবার কারণে অপরাধীরা পার পেয়ে যাচ্ছে। শঙ্কার বিষয় যে এ ধরনের ঘটনা প্রতিরোধে আইনের শক্ত ব্যবহার না হলে বন্ধ হবে না ধর্ষণ। যেভাবে এই অপরাধ দিন দিন বেড়ে চলছে তাতে দোষীদের উপরে সমাজের বিশ্বাসকেই টলিয়ে দিচ্ছে। পরিবহণে ধর্ষণের ঘটনাগুলো বিরলতম ধর্ষণের ঘটনা হিসেবেই চিহ্নিত করে এর সঠিক বিচার হওয়া চাই। এই অপরাধে মৃত্যুদ-ই সমীচিন বলেও দাবি তুলা সময় এসেছে। ওরা আমাদের বোন। আমাদের মতো ওরাও বাঁচতে চেয়েছিল। পুরুষের   লোলুপতা ওদের ছিন্ন-ভিন্ন করেছে। বাঁচতে দেয়নি ওদের স্বপ্নকে। বছরের পর বছর তিলে তিলে গড়ে তোলা স্বপ্ন নিমিষেই ধ্বংস করে দিয়েছে। রিমা ও রূপার হাজারো কাকুতি-মিনতি ধর্ষকরা শুনেনি। বরং মানবিকতাকে পায়ে দলিত করে হত্যা করেছে রিমা,রূপাকে। আমাদের চার পাশের এই পুরুষ মুখোশধারী ধর্ষদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

রাজীবুল হাসান

লেখক: সাংবাদিক

 

 

 

*

*

Top