Bhalukanews.com

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে চাঞ্চল্যকর কিশোর সাগর হত্যা মামলার প্রধান আসামী আক্কাস আলীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১৪

১। বাংলাদেশের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির ক্রান্তিলগ্নে“বাংলাদেশ আমার অহংকার” এই শ্লোগান নিয়ে জন্ম হয় র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) এর । প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে র‌্যাব বাংলাদেশের মানুষের কাছে আস্থা ও বিশ্বাসের প্রতীক। বিভিন্ন ধরনের চাঞ্চল্যকর অপরাধের স্বরূপ উৎঘাটন করে অপরাধীদের আইনের আওতায় নিয়ে আসার কারনেই এই প্রতিষ্ঠান মানুষের কাছে আস্থা ও নিরাপত্তার অন্য নাম হিসেবে ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা লাভ করেছে। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে অপরাধীরা বিভিন্ন অপরাধ করছে তার মধ্যে হত্যা ও খুন অন্যতম। র‌্যাব তার প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে জঙ্গি ও সন্ত্রাস, মাদক, অস্ত্র, অপহরণ,হত্যাসহ বিভিন্ন প্রকার অবৈধ কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে আপোষহীন অবস্থানে থেকে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে যা দেশের সর্বস্তরের জনসাধারন কর্তৃক ইতোমধ্যেই বিশেষভাবে প্রশংসিত হয়েছে।

২। গত ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ইং তারিখ ময়মনসিংহ জেলার গৌরীপুর থানা এলাকার চরশ্রীরামপুর গ্রামে চুরির অপবাদ দিয়ে খুটিঁতে বেঁধে সাগর(১৬) নামের এক কিশোরকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করার কারণে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চলের সৃষ্টি হয়। নিশংস,নির্মম ও জঘন্য এই হত্যাকান্ডের খবর ছড়িয়ে পড়ার সাথেসাথেই র‌্যাব-১৪ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত অপরাধীদের ধরার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা অব্যাহত রাখে। এরই ফলশ্রুতিতে গত ২৯ সেপ্টেম্বর রাতে উক্ত ঘটনার প্রধান আসামী গাউছিয়া হ্যাচারির মালিক আক্কাস আলী@আক্কা(৪০) কিশোরগঞ্জের ভৈরব হয়ে সিলেটে পালিয়ে যাওয়ার পথে ভৈরবের শম্ভুপুর রেলক্রসিং এলাকা হতে র‌্যাব -১৪, সিপিসি-৩(ভৈরব ক্যাম্প) এর কোম্পানী কমান্ডার মেজর শেখ নাজমুল আরেফিন পরাগ এবং সিপিএসসির ভারপ্রাপ্ত কোম্পানী কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ সাজ্জাদ হোসেন এর নেতৃত্বে পরিচালিত একটি আভিযানিক দল তাকে গ্রেফতার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামী ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।

৩। ঘটনা সংক্রান্তে জানা যায় গত ২৫ সেপ্টেম্বর সোমবার খুব ভোরে ময়মনসিংহ কিশোরগঞ্জগামী সড়ক সংলগ্ন গাউছিয়া হ্যাচারির মালিক আক্কাস আলী@ আক্কা উক্ত কিশোর সাগরকে পাম্প মটর চুরির অপবাদে হ্যাচারির সাইনবোর্ডের খুটির সাথে পিঠমোড়া দিয়ে বেঁধে নির্মম ভাবে পেটাতে শুরু করে এবং তার নির্দেশে তার ভাই জুয়েল মিয়া ও সহযোগী কাইয়ুম, হাসু,সোহেল ও সাত্তার সহ আরো কয়েক জন সাগরকে নির্দয় ও নিষ্ঠুরভাবে অমানুষিক নির্যাতন করে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত অনেকেই তখন আক্কাস আলীকে এধরনের নির্যাতন করতে নিষেধ করেন, তবে তিনি তা শোনেননি।উক্ত শারীরিক নির্যাতনের ফলে পরর্বতীতে সাগরের মৃত্যু ঘটে। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে সাগরের বাবা শিপন মিয়া গত ২৬/০৯/২০১৭ তাং এ গৌরীপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। যাহার নাম্বার ২৯ তারিখ-২৬/০৯/২০১৭ ধারা-৩০২/২০১/৩৪ দন্ডবিধি।

৪। ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্য আসামীদেরকে গ্রেফতারের জন্য র‌্যাব-১৪ এর আভিযানিক কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।(বিজ্ঞপ্তি)

*

*

Top