Bhalukanews.com

ব্ল্যাক সোয়ানের ৪ ছানা,পাড়ছে ডিম

DSCF1783

এফ এম আমান উল্লাহ আমান,গাজীপুর:-গাজীপুরের শ্রীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে ব্ল্যাক সোয়ানের জন্ম নেওয়া ৪ টি ছানা বেশ ভালো আছে। আরো কয়েকটি ডিম দিচ্ছে। অস্ট্রেলিয়ায় ব্ল্যাক সোয়ান বা কালো রাজহাঁস ডিম থেকে নিজের বাচ্ছা নিজেই ফোটায়। কিন্তু বাংলাদেশে হাঁসের ডিম মুরগী দিয়ে বা গৃহিনী ধানের তুষ কুড়ায় তাপ দিয়ে বাচ্ছা ফোটিয়ে থাকে। গাজীপুর সাফারি পার্কে এ হাঁস আছে ২৬টি। এরা উড়ে দূর থেকে বহুদূর যেতে পারে বিধায় ডানার পালক কেটে রাখা হয়েছে এখানে। সম্প্রতি পার্কে ডিম থেকে ব্ল্যাক সোয়ানের তিনটি ছানা ও আগের একটিসহ মোট ৪ টি। ব্ল্যাক সোয়ান অস্ট্রেলিয়ার হলেও সাফারি পার্কের গুলো দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আনা। পার্ক প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখানে এদের বংশবৃদ্ধি হচ্ছে। নামের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখেই এরা কুচকুচে কালো। তবে এদের আরও আকর্ষণীয় করে তুলেছে টুকটুকে লাল ঠোঁট। ব্ল্যাক সোয়ানরা কখনো থাকে একা, কখনো এদের দেখা যায় পালে। অস্ট্রেলিয়ায় ব্ল্যাক সোয়ানের গুরুত্ব অপরিসীম।
এনিমেল কিপার রফিকুল ইসলাম এর সাথে নিয়ে ফেন্সি ডাক গার্ডেনে গিয়ে দেখা যায়, লেকে ঘুরছে বিভিন্ন রঙের হাঁসের পাল। লেকের পাড়েই ডিম নিয়ে বসে আছে আরেকটি মা কালো হাঁস। পাশেই পাহারারত বাবা হাঁস। তার একটু দুরে বেষ্টনীতে একটি কালো মা ব্ল্যাক সোয়ান। সঙ্গে তিনটি ছানা। চলতি মাসের ৩ ও ৪ তারিখ বাচ্চাগুলো ডিম থেকে বের হয়েছে ।
আরেক জন কর্মকর্তা ইন্দ্রজিৎ দত্ত জানান, ব্ল্যাক সোয়ান সবজি, ভুট্টা ও দানাদার খাবার খায়। মা সোয়ান সারা দিন বাচ্চাগুলোকে নিয়ে ঘুরে বেড়ায়। কাছে গেলে বাচ্চার নিরাপত্তা নিয়ে এরা শঙ্কিত হয়ে পড়ে। তাই পাখা দিয়ে সজোরে আঘাত করতে আসে। বাচ্চাগুলো ছোট হওয়ায় মূল লেকে এদের আপাতত নামতে দেওয়া হচ্ছে না। বিকল্প হিসেবে লেকের এক পাশে বেষ্টনীর মধ্যে রাখা হয়েছে।
ব্ল্যাক সোয়ান নিজেরাই গাছের পাতা বা খড়কুটা সংগ্রহ করে তার ওপর ডিম পাড়ে। এরা এক মৌসুমে ৮টি পর্যন্ত ডিম দেয়। এদের লেজ থেকে ঠোঁট পর্যন্ত দৈর্ঘ্য ৫৬ ইঞ্চি পর্যন্ত হয়। স্ত্রী ব্ল্যাক সোয়ান ৭ থেকে ৮ কেজি এবং পুরুষেরা ৯ কেজি পর্যন্ত হয়। এদের চোখ উজ্জ্বল। গলা দীর্ঘ বাঁকানো। লাল রঙের ঠোঁট খুবই উজ্জ্বল। ফেন্সি ডাক গার্ডেনে ব্ল্যাক সোয়ান ছাড়াও মাথায় টুপওয়ালা মেন্ডারিন ও কেরোলিনা জাতের হাঁস আছে। পুরো লেকজুড়ে বিভিন্ন জাতের হাঁস সাঁতরে বেড়ায়। লেকের পাড়ে এদের থাকা ও ডিম পাড়ার ব্যবস্থা আছে।

সাফারি পার্কের ওয়াইল্ড লাইফ সুপারভাইজার সরোয়ার হোসেন খান জানান, রাঙ্গনিয়ায় শেখ রাসেল এভিয়্যারি অ্যান্ড ইকো পার্কেও ব্ল্যাক সোয়ান আছে। তবে সাফারি পার্কে এদের সংখ্যা অনেক বেশি। বর্তমানে এখানে চার ছানা বাদে ব্ল্যাক সোয়ান ২৬টি এবং হোয়াইট সোয়ান ২২টি। এদের মূলত নেদারল্যান্ডস ও অস্ট্রেলিয়ায় বেশি দেখা যায়। বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক প্রতিষ্টার পর দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ব্ল্যাক সোয়ান এখানে আনা হয়েছিল। এখানে প্রাকৃতিক পরিবেশে এদের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ঘটছে।

*

*

Top