Bhalukanews.com

পুলিশ বললেন___আপনার পকেটে প্রশ্ন আছে,বের করেন!

রাজীবুল হাসান:সকাল সারে১০টা । এরই মধ্যে এমসিকিউ শেষ হয়েছে। মূল(লিখিত)প্রশ্নপত্র দেওয়ার জন্য কেন্দ্র সচিব প্রশ্ন নিয়ে রুমে রুমে দৌঁড়াচ্ছেন। ঠিক সেই মুহুর্তে একটি প্রশ্ন নিয়ে দায়িত্বে থাকা সহকারি কেন্দ্র সচিব মূল ফটক দিয়ে কেন্দ্রের বাহিরে গেলেন। গতিবিধি বুঝে পেছন পেছন অনুসরণ করতে লাগলেন এক পুলিশ সদস্য। এক পর্যায় কেন্দ্র থেকে অল্প দূরে ওই সচিবকে পকেট থেকে কিছু একটা বের করতে দেখেন। আস্তে আস্তে সচিবের কাছে একটি দোকানের পাশে অবস্থান করতে থাকেন ওই পুলিশ সদস্য। পরে কাছে গিয়ে ওই সচিবকে বলেন-‘আপনার পকেটে প্রশ্ন আছে,বের করেন!’ মুহুর্তেই ঘটনাস্থলে লোকজন জড়ো হতে থাকে। পরে পুলিশ ওই শিক্ষকের পকেট থেকে চলমান গণিত প্রশ্ন উদ্ধার করেন। শনিবার চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটে শ্রীপুর উপজেলার মাওনা এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রের পিয়ার আলী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ভেন্যুতে। অভিযুক্ত শিক্ষককে তাৎক্ষণিক কেন্দ্রের সকল দায়িত্ব থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা। এ ঘটনায় শ্রীপুর থানা পুলিশ ওই শিক্ষককে আটক করে নিয়ে যায়।

অভিযুক্ত শিক্ষক আমজাদ হোসেন নাহিন উপজেলার আলহাজ্ব ধনাইবেপারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও এসএসসি পরীক্ষার মাওনা কেন্দ্রের সহকারি সচিব। অভিযুক্ত সহকারি কেন্দ্র সচিব আমজাদ হোসেন নাহিন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন,আমি এমনিতেই বাহিরে গিয়েছিলাম। অভিযোগটি মিথ্যা।

প্রশ্নপত্রসহ শিক্ষককে আটক করা পুলিশের শিক্ষানবিশ উপপরিদর্শক (পিএসআই) মো.নয়ন ভূইয়া জানান, প্রশ্ন পকেটে রাখার ঘটনাটি দেখে তাকে হাতেনাতে ধরার জন্য অপেক্ষা করছিলাম।কিছুক্ষণের মধ্যেই ওই শিক্ষক প্রশ্নপত্র নিয়ে কেন্দ্রের বাইয়ে যাচ্ছিলো। আমি তার পিছু নেই। ফটকের বাইরে গিয়ে তিনি প্রশ্নটি অজ্ঞাত কাউকে দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। ডিএসবির এক সদস্যের সহযোগিতায় তাকে হাতেনাতে আটক করা হয়েছে।

এসএসপি পরীক্ষার মাওনা কেন্দ্রের সচিব মো.শাহজাহান সিরাজ বলেন, পুলিশ তাকে হাতেনাতে আটক করেছে। পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট সকল দায়িত্ব থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান,পরীক্ষা চলাকালীন সময় কেন্দ্র সহকারি সচিবের কাছে কেন্দ্রের বাইরে প্রশ্নপত্রসহ আটক করে থানায় নিয়ে গেছে। তদন্তপূর্ব এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি)আসাদুজ্জামান জানান, পরীক্ষা চলাকালীন সময় দায়িত্বরত অবস্থায় আমজাদ হোসেন নাহিদ নামের শিক্ষকের কাছে প্রশ্নপত্র পাওয়ায় তাকে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

*

*

Top