Bhalukanews.com

ভালুকায় বনের ভিতরে কয়লা কারখানা

ভালুকা (ময়মনসিংহ)প্রতিনিধি ;ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার চামিয়াদী গ্রামের সংরতি বনের ভেতরে অবৈধ কমপে নয়টি অবৈধ কয়লা কারখানা গড়ে উঠেছে। এসব কারখানায় অবাধে শাল-গজারিসহ বনের বিভিন্ন কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরি করা হচ্ছে। এতে প্রাকৃতিক এবং সামাজিক বনায়ন উজাড়ের পাশাপাশি কালো ধোঁয়ায় পরিবেশের তি হচ্ছে।
উথুরা রেঞ্জ কার্যালয় সূত্রে জানাযায়, উপজেলার চামিয়াদী গ্রামে বন বিভাগের সামাজিক বনায়ন ও প্রাকৃতিক শাল-গজারির বাগান রয়েছে। এলাকাটি ময়মনসিংহ বন বিভাগের উথুরা রেঞ্জ ও বিট কার্যালয়ের আওতাধীন।এই বিটে প্রাকৃতিক বনভূমির পরিমান ১৫৮ হেক্টর।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ভালুকা উপজেলার চামিয়াদী বাজারের উত্তর পাশে চারটি এবং বাজারের দক্ষিন পাশে পাঁচটি কয়লা কারখানা দেখা গেছে। উথুরা বিটের চামিয়াদী বাজার এলাকায় বনের ভিতর পাঁচটি বড় চুলা করে গজারী কাঠ পোড়ানো হচ্ছে। চুলাগুলো ইট উপর মাটি দিয়ে তৈরি। কারখানার আশপাশে গজারি কাঠ স্তুুপ করে রাখা হয়েছে। কারখানার চারপাশে আকাশ মনি গাছের বাগান রয়েছে। এই কারখানায় একজন শ্রমিক কাজ করতে দেখা যায়। তার নাম জাহিদুল ইসলাম।আর কারখানা মালিকের নাম আব্দুল কাদের।এই কারখানাটিসহ বাকী গুলোরও মালিক আব্দুল কাদের বলে জানিয়েছেন জাহিদুল।
কারখানার শ্রমিক জাহিদুল ইসলাম আরও বলেন , চুলায় কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরি করতে সময় লাগে ১৪-১৫দিন।একটি চুলায় ত্রিশ বস্তা কয়লা হয়।প্রতি বস্তা কয়লার দাম আটশ থেকে নয়শ টাকা।
উথুরা বিট কর্মকর্তা রথিন্দ্র কিশোর রায় বলেন,গজারি কাঠ জব্দ করে নিয়ে আসা হয়েছে।আবার বেশি করে জনবল নিয়ে অভিযান চালিয়ে সবগুলো চুলা ভেঙ্গে কারখানা বন্ধ করে দেয়া হবে।
ময়মনসিংহ দক্ষিন বন বিভাগের সহকারী বন সংরক (এসিএফ) প্রানতোশ কুমার আজ দুপুরে মোঠো ফোনে বলেন,বিষয়টি আমার জানা ছিল না।আমি ওই স্থানে গিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করব।

*

*

Top