Bhalukanews.com

দ্বন্দ্ব ফেসবুকে যুবলীগ নেতাকে পেটানোর অভিযোগ

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি-দ্বন্দ্বের শুরুটা ফেসবুকে। অতপর প্রকাশ্যে হামলা। অবশেষে ঘটনাটি গড়ালো মামলায়। ক্ষমতাসীন দলের দুই গ্রুপের  শক্তিশালী দুই সর্মথকের মধ্যে। একজন আওয়ামী লীগ নেতা ও শ্রীপুর পৌর মেয়র আনিছুর রহমানের বৈমাতৃয় ভাই হাফিজুর রহমান,আরেকজন স্থানীয় সাংসদপুত্র জামিল হাসান দুর্জয়ের ডানহস্ত হিসেবে পরিচিত যুবলীগ নেতা শাহীন আহমেদ জিয়া। গত রোববার (২৯ জুলাই) সন্ধ্যায় শ্রীপুর পৌরসভার মাধখলা নামক স্থানে এ হামলার ঘটনা ঘটে। আহত শাহীন আহমেদ জিয়া  শ্রীপুর পৌর যুবলীগের সদস্য বলে জানা যায়। তিনি উপজেলার বেতজুড়ি গ্রামের সুলতান উদ্দিনের ছেলে। এ ঘটনায় মাধখলা গ্রামের হাবিবুর রহমানের ছেলে হাফিজুর রহমান (৪৫) কে আসামি করে অজ্ঞাত ৪/৫জনের বিরুদ্ধে শ্রীপুর থানায় একটি মামলা(মামলা নং-৭৩) দায়ের করেন আহত ওই যুবলীগ নেতা। মামলা সূত্রে জানা যায়, ব্যবসায়ীক কাজে গড়গড়িয়া নতুন বাজার থেকে মাধখলা বাজারে পৌঁছা মাত্রই আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা মাধখলা গ্রামের হাফিজুর রহমানসহ অজ্ঞাত ৪/৫জন ব্যক্তি অতর্কিতভাবে জিয়ার উপর হামলা চালায়। জীবন রক্ষার্থে চিৎকার করলে বাজারের লোকজন ছুটে এসে জিয়াকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে। আহত যুবলীগ নেতা শাহীন আহমেদ জিয়া বলেন, ‘হাফিজুর রহমান দীর্ঘদিন ধরে ফেসবুকে আমার সম্পর্কে বাজে মন্তব্য,স্ট্যাস্টাস দিয়ে আসছে । বিভিন্ন সময় আমাকে মেরে ফেলার হুমকিও দিচ্ছে। আমাকে দেখে নেয়ার কথা বলতো। তার সূত্র ধরে রোববার দিবাগত রাতে মাধখলায় গেলে হাফিজুর রহমান ও তার লোকজন আমার উপর হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করে। স্থানীয়দের সহযোগিতায় প্রাণে বেঁচে যাই। তিনি আরো বলেন, হাফিজুর রহমান একজন অসামাজিক লোক। তিনি বিভিন্ন সময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সম্মানী লোকদের অসম্মানী করে বিভিন্ন স্ট্যাটাস দিয়ে থাকেন। শ্রীপুরের প্রায় মানুষ তার অত্যাচারে অতিষ্ট। অভিযুক্ত হাফিজুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি।
শ্রীপুর থানার এসআই আজাহারুল ইসলাম বলেন,‘ মামলা হয়েছে,বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি।’

*

*

Top