Bhalukanews.com

ভালুকায় পাঁচ সন্তানের জননীকে নির্যাতনের পর হত্যার অভিযোগ আটক ২

ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধিঃ ময়মনসিংহের ভালুকায় বেনু রবিদাস নামে পাঁচ সন্তানের জননীকে নির্যাতনের পর হত্যা করে মরদেহ বাড়ি সংলগ্ন একটি গাছে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ভালুকা মডেল থানা পুলিশ নিহতের স্বামী সেরু রবিদাস ও প্রতিবেশী জালাল উদ্দিনকে আটক করেছে। ঘটনাটি ঘটে উপজেলার রাংচাপড়া নিশাইগঞ্জ মোড় এলাকায়। সোমবার নিহতের বেনু রবিদাসের বাবা এ ঘটনায় মেয়ের স্বামীকে অভিযুক্ত করে ভালুকা মডেল থানায় এজাহার দায়ের করেছেন। জানা যায়, রবিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে গৃহবধু বেনু রবিদাসের মরদেহ বাড়ির পাশে একটি গাছের ডালে ঝুলতে দেখে স্বজনরা পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ও দুজনকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এ সময় বেনু রবিদাসের ১০ বছরের কন্যা গীতা রবিদাসকে ঘটনা সম্পর্কে জানতে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়। এ ঘটনা সম্পর্কে প্রতিবেশী ও নিহতের স্বজনরা জানান, বেনু রবিদাসের সাথে স্বামীর দাম্পত্য কলহ ছিল। ঘটনার পর স্বামী সেরু রবিদাস বাড়ি ছিল না। নিহতের মরদেহে আঘাতের চিহ্ন ও পা মাটিতে লাগানো ছিল। নিহতের বাবা সন্তোষ রবিদাস অভিযোগ করে বলেন, সেরু রবিদাস কোন কাজ কর্ম করতো না। প্রায়ই স্ত্রী-সন্তানের উপর শারীরিক নির্যাতন চালাতো। পাঁচ সন্তানসহ সংসারের ঘানি টানতে হতো নিহত বেনু রবিদাসকে। তবে স্বামী সেরু রবিদাস প্রতিবেশি জালাল উদ্দিনকে ভূমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে তার স্ত্রীকে হত্যার দাবী করেন। এ ব্যাপারে ভালুকা মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাজহারুল ইসলাম বলেন, ঘটনাটি প্রাথমিকভাবে হত্যাকান্ড বলেই মনে হচ্ছে। সন্দেহভাজন হিসেবে নিহতের স্বামী সেরু ও প্রতিবেশি জালালকে আটক করা হয়েছে। ঘটনার সময় বাড়িতে থাকা নিহতের বড় মেয়ে মেয়ে গীতাকে ঘটনা সম্পর্কে জানতে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় মালার প্রস্তুতি চলছে। মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

*

*

Top