Bhalukanews.com

স্কুলছাত্র সজিব হত্যার প্রধান আসামি বন্দুকযুদ্ধে নিহত

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার গোবিন্দহুদা গ্রামে র‍্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে রাকিবুল ইসলাম নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন। রোববার দিবাগত রাত ২টার দিকে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে এ সময় ঘটনাস্থল থেকে ১টি দেশিয় শাটারগান, ২ রাউন্ড গুলি ও দেশিয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

র‍্যাব বলছে, রাকিবুল স্কুলছাত্র মাহফুজ আলম সজীব অপহরণ ও হত্যা মামলার প্রধান আসামি। সে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার আলোকদিয়া মনিরামপুর গ্রামের ঈমান আলীর ছেলে ও আলোকদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার।
জানা গেছে, অপহরনের ৩২ দিনের মাথায় চুয়াডাঙ্গা জেলা শহরের সিঅ্যান্ডবি পাড়ার মৎস্য ভবনের পাশের একটি লাইট ফ্যাক্টরির সেফটিক ট্যাংকের ভেতর থেকে ৩১ আগস্ট বুধবার সকালে ফায়ার সার্ভিসের ২টি ইউনিটের সহযোগীতায় র‌্যাব-৬ ঝিনাইদহ ক্যাম্পের সদস্যরা স্কুলছাত্র সজিবের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেন। এ ঘটনায় নিহত স্কুল ছাত্র সজিবের মামা আ. হালিম বাদী হয়ে (বন্দুকযুদ্ধে নিহত) রকিবকে প্রধান আসামি করে ৬ জনের নাম উল্লেখসহ আরও ৫/৬ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে দামুড়হুদা মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
দামুড়হুদা মডেল থানার ওসি আবু জিহাদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, র‌্যাব-৬ এর ঝিনাইদহ ক্যাম্পের একটি টহলদলের সদস্যরা শনিবার দিনগত রাত ২টার দিকে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার চিৎলা-গোবিন্দহুদা গ্রামের পাকা রাস্তার ধারে একটি আম বাগানের কাছে পৌছালে সন্ত্রাসীরা তাদের উপর হামলা চালায়। রাত ৩টার দিকে র‌্যাব সদস্যরা আম বাগানের ভিতর ঢুকে লাইটের আলোয় গুলিবৃদ্ধ এক সন্ত্রাসীকে পড়ে থাকতে দেখে তাকে উদ্ধার করে দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে (চিৎলা হাসপাতাল) নেয়। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক গুলিবৃদ্ধ সন্ত্রাসীকে মৃত. ঘোষণা করেন। র‌্যাব-৬ এর টহলদলটি তাৎক্ষণিকভাবে লাশের পরিচয় না পাওয়ায় অজ্ঞাত হিসাবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দামুড়হুদা মডেল থানা পুলিশের কাছে বুঝিয়ে দেয়।
ওসি আবু জিহাদ আরও জানান, নিজস্ব সোর্সের মাধ্যমে আমরা অনেকটাই নিশ্চিত যে, দামুড়হুদা আলোচিত মেধাবী ছাত্র সজীব অপহরণ শেষে হত্যা করা মামলার প্রধান আসামি রাকিব। তার বিরুদ্ধে চুয়াডাঙ্গার বিভিন্ন থানায় কমপক্ষে অর্ধ-ডর্জন হত্যা মামলাসহ ছিনতাই, অপহরণ ও ডাকাতির একাধিক মামলা রয়েছে।

*

*

Top