Bhalukanews.com

সাংবাদিক মানিক সাহা হত্যা মামলায় ৯ জনের যাবজ্জীবন, খালাস ২

খুলনা প্রতিনিধি: খুলনার সাংবাদিক মানিক চন্দ্র সাহা হত্যা মামলায় নয়জনের যাবজ্জীবন ও দুজনকে খালাস দিয়েছেন আদালত। খুলনার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক এম এ রব হাওলাদার আজ বুধবার দুপুর সোয়া ১টার দিকে এ রায় ঘোষণা করেন। চলতি মাসে রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে আজ এ মামলার জন্য দিন ধার্য করেছিলেন আদালত।
একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিক মানিক চন্দ্র সাহা ২০০৪ সালের ১৫ জানুয়ারি খুলনা প্রেসক্লাবের কাছে ছোট মির্জাপুর রোডে (বর্তমানে মানিক সাহা সড়ক) প্রবেশের মুখে দুর্বৃত্তদের বোমা হামলায় ঘটনাস্থলে নিহত হন।
মামলার নথি থেকে জানা যায়, ২০০৪ সালের ১৫ জানুয়ারি সাংবাদিক মানিক সাহাকে হত্যার পর ১৭  জানুয়ারি পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) রঞ্জিৎ কুমার দাস বাদী হয়ে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় খুলনা সদর থানায় মামলা  করেন। একই দিন একই থানায় বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে আরেকটি মামলা দায়ের হয়।
হত্যাকাণ্ডের ছয় মাসের মাথায় ২০০৪ সালের ২০ জুন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক (ডিবি) কাজী আতাউর রহমান ও সদর থানার তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোশাররফ হোসেন ১০ জন ‘চরমপন্থী’কে অভিযুক্ত করে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। এরপর ২০০৭ সালের ২ ডিসেম্বর এ মামলার পরবর্তী তদন্ত কর্মকর্তা সদর থানার ওসি মো. ইকবাল হোসেনসহ পাঁচজন পুলিশ কর্মকর্তার সমন্বয়ে আদালতে দাখিল করা সম্পূরক অভিযোগপত্রে আরো একজনের নাম উঠে আসে।
সব মিলিয়ে এ হত্যাকাণ্ডের মামলায় ১১ জন চরমপন্থীর নামে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল হয়। অন্যদিকে বিস্ফোরক আইনের মামলায় তদন্তকারী কর্মকর্তা খুলনা সদর থানার এসআই আসাদুজ্জামান ফরাজী একই বছরের ১৯ মার্চ ১০ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।
আদালত সূত্রে জানা যায়, মামলার অভিযোগপত্রভুক্ত ৫৪ সাক্ষীর মধ্যে চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ৪৫ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়। ১৫ ফেব্রুয়ারি ফৌজদারি কার্যবিধির ৩৪২ ধারায় আসামিদের পরীক্ষার দিন ধার্য করেন খুলনা মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক অরূপ কুমার গোস্বামী। এরপর চলতি বছরের এপ্রিল মাসে মামলাটি খুলনা বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে হস্তান্তর করা হয়।
চলতি মাসের ২১ নভেম্বর এ মামলার সাক্ষী ম্যাজিস্ট্রেট দেওয়ান আবদুস সামাদের সাক্ষ্যগ্রহণের মধ্য দিয়ে শেষ হয় সাক্ষ্যগ্রহণ পর্ব। ২২ থেকে ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক চলে। সাংবাদিক মানিক সাহা হত্যাকাণ্ড ও বিস্ফোরক মামলার সাক্ষী তাঁর মেয়ে মৌমিতা সাহা বিদেশে আছেন। তাই তাঁর সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়নি।
মামলায় মোট আসামি ছিলেন ১৩ জন। সম্পূরক অভিযোগপত্রে আরো একজনকে অভিযুক্ত করায় মোট আসামি হয় ১৪ জন। এর মধ্যে তিনজন ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন। তাঁরা হলেন আবদুর রশিদ, আলতাফ ওরফে বিডিআর আলতাফ ও মাহফুজ ওরফে মাফিজ ওরফে নাসিম ওরফে শফিকুল ইসলাম।
জীবিত আসামির সংখ্যা ১১ জন। তাঁরা হলেন আকরাম হোসেন হাওলাদার ওরফে আকরাম হাওলাদার ওরফে বোমারু হাওলাদার, আলী আকবর শিকদার ওরফে শাওন, হাই ইসলাম, নুরুজ্জামান, মিঠুন, সুমন, সাত্তার ওরফে ডিসকো সাত্তার, বেল্লাল ওরফে বুলবুল, কচি ওরফে ওমর ফারুক, সাকা ওরফে সাকাওয়াত হোসেন ও সরোয়ার হোসেন ওরফে সরো।
মানিক চন্দ্র সাহা খুলনা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি, দৈনিক সংবাদ ও একুশে টেলিভিশনের খুলনা ব্যুরোপ্রধান ছিলেন। এ ছাড়া তিনি বিবিসি বাংলা বিভাগের কন্ট্রিবিউটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

*

*

Top