Bhalukanews.com

ময়মনসিংহের এসপি ট্রাব্যুনালে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইলেন

ভালুকানিউজ ডটকম; অনলাইন ডেস্ক: আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার সৈয়দ নূরুল ইসলাম।

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ার রাজাকার মৃত ওয়াজ উদ্দিনের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলা চলার ঘটনায় বৃহস্পতিবার ট্রাইব্যুনালে হাজির হয়ে ক্ষমা প্রার্থনা করেন তিনি।

শুনানি শেষে বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে দুই সদস্যের ট্রাইব্যুনাল তার আবেদন মঞ্জুর করেন এবং ১০ দিনের মধ্যে পুলিশের মহাপরিদর্শককে (আইজিপি) তার স্বাক্ষরিত লিখিত ব্যাখ্যা জমা দিতে বলেন।

গত ৩১ জানুয়ারি ময়মনসিংহের এসপিকে ১৬ ফেব্রুয়ারি হাজির হয়ে এবং আইজিপিকে লিখিতভাবে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে আদেশ দেন ট্রাইব্যুনাল।

পলাতক অবস্থায় মারা যাওয়ার পরও যুদ্ধাপরাধ মামলায় ময়মনসিংহের ওয়াজ উদ্দিনের বিরুদ্ধে মামলা চলার ঘটনায় গত ১২ জানুয়ারি অসন্তোষ প্রকাশ করেন ট্রাইব্যুনাল। এর পেছনে কার গাফিলতি রয়েছে, তা তদন্ত করতে ওইদিনই প্রসিকিউশন ও আসামি পক্ষকে মৌখিক নির্দেশনা দেওয়া হয়। একই সঙ্গে ট্রাইব্যুনাল অসন্তোষ প্রকশ করেন।

১১ জানুয়ারি ময়মনসিংহ পুলিশ সুপার (বিশেষ শাখা) কার্যালয় থেকে ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রারের কাছে একটি চিঠি আসে। সেখানে বলা হয়, ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ার বাসিন্দা ওয়াজউদ্দিন ২০১৬ সালের ৭ মে মারা যান। গাজীপুরের শ্রীপুরে একটি ভাড়া বাড়িতে তার মৃত্যু হয়েছে। এর আগে ট্রাইব্যুনালকে আসামির মৃত্যুর বিষয়ে কিছু জানান হয়নি।

গত ১১ ডিসেম্বর ওই মামলায় ওয়াজউদ্দিনের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন হয়। ময়মনসিংহের পুলিশ সুপারের পাঠানো চিঠি সম্পর্কে ট্রাইব্যুনালকে অবহিত করা হলে ট্রাইব্যুনাল অসন্তোষ প্রকাশ করেন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, মুক্তিযুদ্ধের সময় আমজাদ আলী, রিয়াজউদ্দিন ফকির ও ওয়াজউদ্দিন হত্যা-গণহত্যা, ধর্ষণসহ নানা মানবতাবিরোধী অপরাধে নেতৃত্ব দেন। তাদের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাসহ বহু মানুষকে হত্যা ও পাটিরায় ৩ হিন্দু নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ রয়েছে।

২০১৫ সালের ২৯ মার্চ আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন ট্রাইব্যুনাল। একই বছরের ১৬ জুন পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয় আসামি পলাতক। এর ৯ দিন পর আত্মসমর্পণ করে হাজির হতে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়।

২০১৫ সালের ১১ আগস্ট রিয়াজউদ্দিন ফকির ও হাজী আমজাদ আলী গ্রেফতারের পর ময়মনসিংহ থেকে ঢাকায় আনার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে একই বছরের ৪ সেপ্টেম্বর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান আমজাদ আলী। আনুষ্ঠানিক অভিযোগ (ফরমাল চার্জ) দাখিলের সময় তাকে আসামির তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়। সর্বশেষ ১১ডিসেম্বর ট্রাইব্যুনাল আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন।

*

*

Top