Bhalukanews.com

নওগাঁর সীমান্ত এলাকায় মাদকসেবীসহ মাদক ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ব বেড়ে গেছে

ব্রেলভীর চৌধুরী, নওগাঁ জেলা প্রতিনিধিঃ নওগাঁ জেলার পতœীতলায় উপজেলা সদর নজিপুর পৌরসভা সহ উপজেলার সীমান্ত এলাকায় মাদকসেবী সহ মাদক ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ব বেড়ে গেছে। প্রশাসনের অভিযান অব্যাহত থাকলেও এসব মাদকসেবীদের কোন ক্রমেই মাদক সেবন সহ ব্যবসা রোধ করা সম্ভব হচ্ছেনা।মাদক ব্যবসায়ীরা পতœীতলা, সাপাহার ও ধামইরহাট সীমান্ত এলাকা দিয়ে ভারত থেকে চোরাই পথে আনা মাদক দ্রব্য হেরোইন, ফেন্সিডিল, ইয়াবা, প্যাথোডিন, গাঁজা সহ ভারতীয় মদের মজুদ পতœীতলার বিভিন্ন এলাকায় গড়ে তোলায় নওগাঁ, মহাদেবপুর, বদলগাছী সহ বিভিন্ন এলাকার মাদক সেবীরা পতœীতলায় ভিড় জমিয়েছে। এসব মাদক সেবীরা মাদক সেবনের জন্য দৈনন্দিন মটরসাইকেল যোগে পতœীতলার মাটিন্দর শিবপুর বাজার, মধইল বাজার, কৃষ্ণপুর চক মমিন ডাঙ্গাপাড়া, পতœীতলা বাজার, কাশিপুর, বাগুড়িয়া ছালিগ্রাম, গগনপুর বাজার, কাটাবাড়ি কাঞ্চন মালোপাড়া সহ বিভিন্ন এলাকায় দিবারাত্রী ছুটছে।

সকাল থেকে রাত পর্যন্ত এসব এলাকায় মটরসাইকেল যোগে আসা মাদক সেবীদের সরগমে স্থানীয় সাধারন মানুষের চলা ফেরা দূর্বিসহ হয়ে উঠেছে। এসব মাদকসেবীরা অধিকাংশই সম্ভ্রান্ত পরিবারের। এরা অনেকেই নিজে মাদক সেবন করে এবং বন্ধু-বান্ধবদের মাঝে মাদক সরবরাহ করে নিজের আয়ের পথ বেছে নিয়েছে। এসব সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তানেরা অনেকেই নানা কৌশল অবলম্বন করে মটরসাইকেল নিয়ে বিভিন্ন ঔষধ কোম্পানির প্রতিনিধি সেজে অথবা পল্লী চিকিৎসক সেজে মাদক ব্যবসা ও সেবন করে চলেছে বলেও জানাগেছে।

এবাদেও পৌরসভা সদরের মাহমুদপুর ভূত পাড়া, হরিরামপুর, পুঁইয়া, পলিপাড়া, চকনিরখীন (ঠুকনিপাড়া মোড়), সিএন্ডবির পাশে সহ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় চোলাই মদের রমরমা ব্যবসা জমিয়ে তুলেছে মাদক ব্যসায়ীরা। মাদক সেবীরা এসব চোলাই মদ খেয়ে প্রকাশ্যে মাতলামি করার অভিযোগও রয়েছে। এসব অবৈধ মাদক সেবন ও ব্যবসা রোধে প্রশাসনের অভিযান অব্যাহত থাকলেও এসব মাদকসেবীদের কোন ক্রমেই মাদক সেবন সহ ব্যবসা রোধ করা সম্ভব হচ্ছেনা।

অপরদিকে চোরাই পথে আসা নেশা হিসাবে ব্যবহিত ইঞ্জেকশন এ্যাম্পোল গুলোকে যুব সম্প্রদায় নেশার আরেকটি সহজ ধাপ হিসাবে বেছে নিয়েছে। এসব মাদক সেবীরা সহজ ভাবে শরীরে ইঞ্জেকশনের মাধ্যমে মাদক গ্রহন করছে। মাদক ব্যবসায়ীরা তাদের স্ব-স্ব স্থান থেকে দৈনন্দিন নওগাঁ মহাদেবপুর সহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা মাদকসেবীদের মাদক সরবরাহ করে চলেছে। প্রকাশ্যে এসব মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারীদের সাধারণ মানুষ দেখতে পেলেও প্রশাসনের অন্তনালে রয়ে গেছে তারা।

এব্যাপারে পতœীতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল মালেকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, প্রশাসন সক্রিয় রয়েছে, বিভিন্ন সময়ে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে মাদক সেবী ও ব্যবসায়ীদের আইনের আওতায় নিয়ে সাজা প্রদান করা হচ্ছে। এ অভিযান আমাদের অব্যাহত আছে। তবে এলাকাবাসী আরো স্বচেতন হলে এলাকা থেকে এসব মাদক সেবী ও ব্যবসায়ীদের নির্মূল করা সম্ভব হবে।

*

*

Top