উপ-সম্পাদকীয়

বিজয়ের গৌরব

-:সফিউল্লাহ আনসারী:-

আমার দেশ বাংলাদেশ।শহীদ গাজীর দেশ বাংলাদেশ।ফুল,পাখী আর নদীর দেশ বাংলাদেশ। পীর- আওলিয়ার দেশ বাংলাদেশ। বিশ্বের মানচিত্রে অপরুপা সৌন্দর্যের লীলা ভূমি আমার বাংলা-আমার এই দেশ বাংলাদেশ। বাংলাদেশ নামের এইযে চিরচেনা স্বাধীন মানচিত্র তা অর্জন করতে দিতে হয়েছে লাখো প্রাণ,মা-বোনের ইজ্জতের চরম মূল্য।
ইতিহাস-ঐতিহ্যে ভরপুর আমার দেশের মুক্তি আর স্বাধীনতার ইতিহাস রক্তে লেখা ইতিহাস। মায়ের ভাষা রক্ষার জন্যও পৃথিবীর ইতিহাসে এই বাঙালীরা রক্ত দিয়েছে;দিয়েছে জীবন বলিদান।সেই বাঙালী জাতীর বিজয়ের গৌরব ভূলে যাওয়া অসম্ভব এবং অকল্পনীয়।আমাদের স্বাধীনতার ইতিহাসে পৌনে তিন লক্ষ মা-বোনের ইজ্জ খোয়ানোর মর্মুদন্তু ইতিহাস বিজয়ের গৌরবকে করেছে আরো করুণ অর্থবহ।১৯৭১ এ সারে নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে  ৩০ লক্ষ শহীদের আত্বত্যাগের ইতিহাস।১৬ ডিসেম্বর বাঙালীর জাতীয় জীবনে এক অবিস্মরণীয় অধ্যায়।
২৬ মার্চের আতংকিত ইতিহাসের জঘন্যতম হত্যাযজ্ঞের মাধ্যমে পশ্চিমা হানাদার বাহিনীর অমানবিক মানবাধীকার লংঘনের যে ঘৃন্যতম ইতিহাসের জন্ম তা বাঙালী জাতীর মুক্তির প্রত্যয়ে গর্জে উঠার দৃপ্ত অধ্যায় যা থেকে বিজয়ের লক্ষে পৌছতে অগনিত লাশ,এক সাগর রক্তের বিনিময়ে অমূল্য পাওয়া স্বাধীনতা আর বিজয়। স্বাধীনতা নামক অতি পরিচিত শব্দটির প্রতি রয়েছে বাঙালী জাতীর  এক অনন্য সাধারণ আবেগ,বেদনাসিক্ত শ্রেষ্ঠ পাওয়া।
বিজয়ের এই দিনে আমাদের আমাদের প্রত্যয় এবং লক্ষ হোক অহিংসার,মুক্ত চিন্তার বিকাশে,অর্থনৈতিক মুক্তির,সমৃদ্ধ দেশ গড়ার-শিক্ষা-সংস্কৃতি,শান্তিতে সংকীর্নতাহীন,দেশের কল্যাণ সাধনের গুরুত্ববহ পদক্ষেপে এগিয়ে যাওয়া।যেখানে ধর্মীয় কুপমন্ডুতা আর রাজনৈতিক প্রতি হিংসা থাকবেনা। গণতান্ত্রিক মুল্যবোধের শিক্ষায় ও আদর্শে সরকারের পাশাপাশি রাজনৈতিক,সামাজিক সংগঠন,দলগুলোর ঐক্যবদ্ধ দেশ প্রেমে উজ্জীবিত উন্নয়ন পরিকল্পনার বাস্তবায়ন। স্বাধীনতার প্রত্যাশা আর বিজয়ের প্রাপ্তির হিসেবে যেনো হয় আমাদের দেশ ও মানুষের সার্বিক উন্নয়ন ও সার্বভৌমত্বের খাতিরে।
তথ্য প্রযুক্তির এ সময়ে বিজ্ঞানের উন্নততর প্রযুক্তির সঠিক ও সুষম ব্যাবহারের মাধ্যমে সকল প্রতিকুলতা পেরিয়ে উজ্জল সম্ভাবনা আর উন্নয়নের ধারাকে অব্যহত ও দ্রুততর করতে পারলে আমাদের বিজয়ের গৌরব অটুট থাকবে;থাকবে স্বাধীনতার সুফল প্রতিটা সেক্টরে। বিজয়েল দিনে আমাদের চাওয়া-বাংলাদেশ যেনো বিশ্বের স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে মডেল হয়ে উঠতে পারে আপন স্বকীয়তায়।দেশের প্রতি প্রত্যেকটা জনগনে ভালোবাসা আর মমত্ববোধের স্বার্থক প্রতিফলনই হোক মহান স্বাধীনতার সুফল এবং প্রত্যাশিত বিজয়ের প্রাপ্তি।
আমরা যেনো কোনভাবেই বিজয়ের গৌরব না যাই ভুলে,থাকি যেনো স্বাধীনতায় ঐক্যবদ্ধ বাংলা-বাঙালী পরিচয়ের মূলে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button